হটাৎ করে হাত পা ঠান্ডা হওয়ার কারণ কি

হটাৎ করে হাত পা ঠান্ডা হওয়ার কারণ কি? এ বিষয়টি আমরা অনেকেই জানিনা। বিভিন্ন কারণে আমাদের হাত পা ঠান্ডা হতে পারে। হটাৎ করে হাত পা ঠান্ডা হওয়ার কারণ কি? এ বিষয়ে বুঝতে না পেরে অনেকেই ভয় পেয়ে যায়। তাদের জন্য হটাৎ করে হাত পা ঠান্ডা হওয়ার কারণ কি? এ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।

হটাৎ-করে-হাত-পা-ঠান্ডা-হওয়ার-কারণ-কি

তাহলে চলুন দেরি না করে ঝটপট হটাৎ করে হাত পা ঠান্ডা হওয়ার কারণ কি? উক্ত বিষয়টি সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক। বিষয়টি সম্পর্কে জানতে হলে আপনাকে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত মনোযোগ সহকারে পড়তে হবে।

সূচিপত্রঃ হটাৎ করে হাত পা ঠান্ডা হওয়ার কারণ কি

হটাৎ করে হাত পা ঠান্ডা হওয়ার কারণ কি?

বিভিন্ন সময়ে আমাদের শরীরে বেশ কিছু কারণে হাত পা ঠান্ডা হয়ে যেতে পারে। আমাদের মধ্যে অনেকেই হটাৎ করে হাত পা ঠান্ডা হওয়ার কারণ কি? এ বিষয়ে না জেনে থাকার কারণে তারা বিষয়টি নিয়ে অনেক ভয় পেয়ে যায়। কিছু স্বাভাবিক কারণেও হাত পা ঠান্ডা হয়ে যেতে পারে। যেমন শীতের সময় শীতের কারণে হাত-পা ঠান্ডা হতে পারে।


শরীরের রক্ত সঞ্চালন ব্যবস্থা সম্পূর্ণ শরীরে উষ্ণ রক্ত পৌঁছে দেই। যার ফলে আমাদের হাত-পা সহ সম্পন্ন শরীর গরম থাকে। যদি কোনো কারণে শরীর ঠান্ডায় থাকে তাহলে আপনার শরীরের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ভীষণ সক্রিয় হয়ে যায়। শরীরকে নির্দেশ দেই তাপমাত্রা ধরে রাখতে। এভাবে উষ্ণ রক্ত শরীরের ত্বকের কাছে কম যায়।

এর কারণ হলো আমাদের শরীরের স্নায়ু গুলো এই বিষয়ে অবগত রয়েছে যে এই জায়গা থেকে সবচেয়ে বেশি গরম বেরিয়ে যেতে পারে। এ ক্ষেত্রে শরীরের মধ্যভাগে বেশি পরিমাণে গরম রক্ত পৌঁছায়। এখন অনেকেই প্রশ্ন শরীরের এই অংশে কেন গরম রক্ত যায়। শরীরের এই অংশেই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলো থাকে। শরীর সে অঙ্গ গুলোকে গরম ধরে রাখতে চাই। সাধারণত হাত পা ঠান্ডা হয়ে যাওয়ার এটাই স্বাভাবিক কারণ।

এছাড়া শারীরিক আরো বিভিন্ন ধরনের কারণে আমাদের হাত পা ঠান্ডা হয়ে যেতে পারে। এর মধ্যে রয়েছে অতিরিক্ত পরিমাণে দুশ্চিন্তা করলে। ব্লাড প্রেসার একেবারে লো হয়ে গেলে। ডায়াবেটিস একেবারে কমে গেলে আমাদের শরীরসহ হাত পা ঠান্ডা হয়ে যেতে পারে। আশা করি হটাৎ করে হাত পা ঠান্ডা হওয়ার কারণ কি? এ বিষয়ে একটা ধারণা পেয়েছেন।

হাত পা ঠান্ডা কোন রোগের প্রথমিক লক্ষণ - হাত পা ঠান্ডা কোন রোগের লক্ষণ

হাত পা ঠান্ডা কোন রোগের প্রথমিক লক্ষণ এ বিষয়ে জানা থাকলে আমরা সাধারণত এই রোগ নির্ণয় করতে পারব। আমাদের শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকলে বিভিন্ন ধরনের রোগ অল্পতেই বাসা বাঁধে। এগুলোর মধ্যে হাত পা ঠান্ডা হয়ে যাওয়া অন্যতম একটি। সাধারণত এটি কোন বড় অথবা স্বাভাবিক রোগের লক্ষণ এটি কোন রোগ নয়। তাই আমাদের যাদের এই সমস্যা রয়েছে তাদের হাত পা ঠান্ডা কোন রোগের লক্ষণ জেনে নেওয়া উচিত।

হাত পা ঠান্ডা কোন রোগের প্রথমিক লক্ষণ নিচে উল্লেখ করা হলোঃ

  • হাইপোথাইরয়েডিজম
  • অতিরিক্ত দুশ্চিন্তা
  • উচ্চ মাত্রার কোলেস্টেরল
  • ডায়াবেটিস
  • রেনৌডস ডিজিজ
হাইপোথাইরয়েডিজম - হাত পা ঠান্ডা হয়ে যাওয়ার অন্যতম একটি বড় রোগ হলো হাইপোথাইরয়েডিজম। থাইরয়েড হল শরীরে শক্তির ভারসাম্য রক্ষাকারী গ্রন্থি। হাইপোথাইরয়েডিজম এর ক্ষেত্রে এই গ্ল্যান্ডে দেখা যায় সমস্যা।

থাইরয়েড গ্রন্থি থেকে সঠিক পরিমাণে থাইরয়েড হরমোন বের হয় না। এর কারণে দেখা যায় বিভিন্ন ধরনের সমস্যা। এই রোগে আক্রান্ত রোগীর শরীর গরম রাখতে সমস্যা হয়। তাই হাত পা ঠান্ডা হলে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ মতো করুন থাইরয়েড পরীক্ষা।

অতিরিক্ত দুশ্চিন্তা - কেউ যদি অতিরিক্ত পরিমাণে দুশ্চিন্তা করে তাহলে তার হাত পা ঠান্ডা হয়ে যেতে পারে। আমরা অনেকেই জানলে অবাক হয়ে যে আমাদের হাত পা ঠান্ডা হয়ে যাওয়ার অন্যতম একটি প্রধান কারণ হলো মানসিক বিভিন্ন ধরনের চাপ। এক্ষেত্রে দুশ্চিন্তা উৎকণ্ঠা শরীরে এপিনেফ্রিন হরমোন এর পরিমাণ বাডি়য়ে দেয়। এই হরমোন বাড়ার কারণে শরীরে দেখা দেয় সমস্যা। যার কারণে হাত-পা এর রক্তপ্রবাহ কমে যায়।

উচ্চ মাত্রার কোলেস্টেরল - শরীরে যদি কোলেস্টেরল এর মাত্রা বেড়ে যায় তাহলে হাত পা ঠান্ডা হয়ে যেতে পারে। কোলেস্টেরল শরীরে বাড়লে তা রক্তনালীর অন্দের জমে। এবার রক্তনালীর ভিতরে কোলেস্টেরল জমলে দেখা দিতে পারে মারাত্মক সমস্যা। তখন হাত পায়ে ঠান্ডা লাগতে পারে। তাই আজ থেকেই হয়ে যান সাবধান।

ডায়াবেটিস - কারো শরীরে যদি ডায়াবেটিস এর মাত্রা বেড়ে যায় অথবা কমে যায় তাদের ক্ষেত্রে এ ধরনের সমস্যা দেখা যায়। এক্ষেত্রে অনিয়ন্ত্রিত সুগার থেকে মানুষ আক্রান্ত হতে পারেন পেরিফেরাল নিউরোপ্যাথিতে।


এর ফলে পায়ের স্নায়ু ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং আপনাকে সমস্যায় ফেলতে পারে। এছাড়া ডায়াবিটিস থেকে দেখা দিতে পারে পেরিফেরাল আর্টারি ডিজিজ। এই রোগে আক্রান্ত হলে রক্তনালীর অন্দরে রক্তপ্রবাহে দেখা দেয় সমস্যা।

রেনৌডস ডিজিজ - হাত পা ঠান্ডা হয়ে যাওয়ার আরও একটি বড় কারণ হলো রেনৌডস ডিজিজ। আপনার যদি হাইপোথাইরয়েডিজমের সমস্যা না হয় সেক্ষেত্রে হতে পারে রনৌডস ডিজিজ। এই রোগে আক্রান্ত ব্যক্তির হাতপায়ের ছোটছোট রক্তনালী বন্ধ হয়ে যায়। ফলে গরম রক্ত সেই হাত পায়ে পৌঁছাতে পারে না। ফলে হাত পা ঠান্ডা থাকে। আশা করি হাত পা ঠান্ডা কোন রোগের লক্ষণ তা জানতে পেরেছেন।

হাত পা ঠান্ডা কোন রোগের জানান দেয়

হটাৎ করে হাত পা ঠান্ডা হওয়ার কারণ কি? ইতিমধ্যে ওপরে বেশ কয়েকটি সমস্যার বিষয় উল্লেখ করা হয়েছে। উপরের কারণগুলো পড়লে আপনি জানতে পারবেন হাত পা ঠান্ডা কোন রোগের জানান দেয়? এছাড়া ঠান্ডা আবহাওয়া বার শীতের কারণে হাত-পা অতিরিক্ত ঠান্ডা হয়ে যেতে পারে। তবে হাত পা ঢেকে রাখার পরেও যদি ঠান্ডা হয় তাহলে হাত পা ঠান্ডা কোন রোগের জানান দেয়? সে সম্পর্কে জেনে রাখা উচিত।

১। হাইপোথাইরয়েডিজম এ রোগের কারণে হাত পা ঠান্ডা হয়ে যেতে পারে। এরকম সমস্যা দেখা দিলে অবশ্যই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।

২। উচ্চ মাত্রার কোলেস্টেরল এর কারণে অনেক সময় আমাদের হাত-পা ঠান্ডা হয়ে যেতে পারে। কোলেস্টেরল শরীরে বাড়লে তা রক্তনালীর অন্দের জমে।

৩। অতিরিক্ত দুশ্চিন্তা করার ফলে আমাদের ব্লাড প্রেসার একেবারে লো হয়ে যেতে পারে। ব্লাড প্রেসার লো হয়ে গেলে আমাদের হাত পা ঠান্ডা হয়ে যায়।

৪। রেনৌডস ডিজিজ হাইপোথাইরয়েডিজমের সমস্যা না হয় সাধারণত সেই ক্ষেত্রে হতে পারে রনৌডস ডিজিজ। এই রোগে আক্রান্ত ব্যক্তির হাতপায়ের ছোটছোট রক্তনালী বন্ধ হয়ে যায়।

৫। ডায়াবেটিস হাত পা ঠান্ডা হয়ে যাওয়ার অন্যতম একটি কারণ। ডায়াবেটিস অনেক সময় একেবারে কমে যাই যার ফলে আমাদের হাত-পা ঠান্ডা হয়ে যায়।

হাত পা ঠান্ডা হলে কি করবেন

হটাৎ করে হাত পা ঠান্ডা হওয়ার কারণ কি? এ বিষয়ে জানার পরে হাত পা ঠান্ডা হলে কি করবেন? কিভাবে এ সমস্যা সমাধান করবেন সে সম্পর্কে আপনাকে জানতে হবে। সাধারণত বিভিন্ন কারণে আমাদের হাত পা ঠান্ডা হয়ে যায়। চলুন হাত পা ঠান্ডা হলে কি করবেন? সে বিষয়গুলো সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

১। সাধারণত শীতের সময় ঠান্ডা আবহাওয়ার কারণে পানি খাওয়ার পরিমাণ অনেকটা কমে যায়। যার ফলে পানি শুন্যতার কারণে এই সমস্যাটি হতে পারে। যার ফলে আমাদের কিডনির বিভিন্ন ধরনের সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাই শীতের সময় ও আমাদের পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি পান করতে হবে।

২। যদি হাত পা ঠান্ডা হয়ে যায় তাহলে এদিকে গরম করার জন্য গরম তেল দিয়ে ম্যাসাজ করতে থাকুন। হাতের তালু ও পায়ের আঙুল গরম রাখার সহজ উপায় হল মাসাজ করা। এতে করে শরীরে অক্সিজেন সরবরাহ বাড়বে এবং হাত-পা গরম হয়ে যাবে।

৩। হাত-পা গরম রাখার জন্য আয়রন সমৃদ্ধ খাবার খাবেন। শরীরে যদি আয়রনের ঘাটতি থাকে তাহলে রক্তস্বল্পতা সৃষ্টি হয় যার ফলে আমাদের হাতের তালু এবং পায়ের তলা ঠান্ডা হয়ে যায়। তাই রক্তস্বল্পতা থেকে মুক্তি পেতে আমরা পর্যাপ্ত পরিমাণে আইরন সমৃদ্ধ খাবার খাব।

আমাদের শেষ কথাঃ হটাৎ করে হাত পা ঠান্ডা হওয়ার কারণ কি

প্রিয় পাঠকগণ আজকের এই আর্টিকেলে হটাৎ করে হাত পা ঠান্ডা হওয়ার কারণ কি? হাত পা ঠান্ডা কোন রোগের প্রথমিক লক্ষণ, হাত পা ঠান্ডা কোন রোগের লক্ষণ, হাত পা ঠান্ডা কোন রোগের জানান দেয়, হাত পা ঠান্ডা হলে কি করবেন? এ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। আপনি যদি এই সমস্যায় ভুগে থাকেন তাহলে অবশ্যই আপনার উক্ত বিষয়গুলো জেনে নেওয়া উচিত।

এতক্ষণ আমাদের সঙ্গে থাকার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। এ ধরনের গুরুত্বপূর্ণ আর্টিকেল আরো পড়তে নিয়মিত আমাদের ওয়েবসাইট ফলো করতে থাকুন। আবার দেখা হবে এই ধরনের গুরুত্বপূর্ণ আর্টিকেলে।২০৭৯১

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url